Walton Primo HM4+ Hands on Review

Mar 31 • রিভিউ, স্মার্টফোন • 78 Views • No Comments on Walton Primo HM4+ Hands on Review

একটু সময় নিয়ে ভালো কিছু স্মার্ট ফোন বাজারে আনলো ওয়াল্টন । ওয়ালটনে এইচ এম সিরিজের প্রথম স্মার্ট ফোন বিগ ব্যটারির জন্য বেশ ভালোই নাম পেয়েছিল । এবারো বেশ সময়ের পর নতুন স্মার্ট ফোন HM4+বাজারে আনলো ওয়ালটন । ফোনটিতে থাকছে ৩৮০০ মিলি এম্পারের বিগ ব্যটারি । well শুধু ব্যটারিই নয়, এ সিরিজের সোফার স্মার্টফোন মনে হয়েছে আমার কাছে । যাইহোক ভিউয়ারস সম্পুর্ন রিভিউটি দেখতে আমাদের সঙ্গেই থাকুন ।

ডিসপ্লে ৫.৫ ইঞ্চি এইচডি  আইপিএস ডিসপ্লে; ১২৮০X ৭২০ রেজ্যুলেশন
অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড ৭ নোগাট
প্রসেসর ১.৩ গিগাহার্জ কোয়াড কোর প্রসেসর
র‌্যাম ২ জিবি
ইন্টারনাল স্টোরেজ/ রোম  ১৬ জিবি
জিপিউ মালি ৪০০
মেমোরী কার্ড স্লট আছে, সর্বোচ্চ ৬৪ জিবি পর্যন্ত
রিয়ার ক্যামেরা ১৩  মেগাপিক্সেল
ফ্রন্ট ক্যামেরা ৮ মেগাপিক্সেল
সিম সাপোর্ট ২ ন্যানো সিম
ব্যাটারী ৩৮০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার ব্যাটারী
মূল্য ৯৯৯০  টাকা

 

শুরুতের বিল্ড কোয়ালিটির কথা বলেছিলাম, সলিড মেটাল বিন্ড এই স্মার্টফোনে ৫.৫ ইঞ্চ ডিসপ্লে থাকায় দেখতেও বেশ বড় । এক হাতে বেশ ভালো ভাবে অপারেট করতে পারবেন , কিন্তু একটু বেগ পেতে হবে । লো বাজেটের স্মার্টফোন অনুযায়ী বিগ ডিসপ্লে পাওয়াটা রিয়েলি প্লাস! এর সলিড মেটাল বিন্ড স্টাকচার স্মার্টফোনটি প্রিমিয়াম লুক দিয়েছে । আর ফ্রন্টে ২.৫ ডি কার্ভড গ্লাস থাকায় দেখতেও দারুন । রেয়ার প্যানেলের টপ এবং বোটম অংশটি প্লাস্টিকের।

কিন্তু ক্যামেরা পোরশনটি কিছুটা আপ লিফটেড করা হয়েছে। ক্যামেরা পরশনটি আলাদা করায় দেখতে ইউনিক লাগছে । স্মার্টফোনটি সম্পূর্ন সিল্ড, ৩৮০০ মিলি আম্পিয়ারের  ননরিমুভেবল ব্যাটারি থাকছে ফোনটিতে । ফ্রন্ট প্যনেলে থাকছে নোটিফিকেশন লাইট , ফ্রন্ট ক্যামেরা, স্পিকার এবং ফ্রন্ট এল ই ডি ফ্ল্যাশ । বোটম প্যানেলে ক্যাপাসিটি টাচ কিস থাকছে ।

বিগ ব্যাটারি থাকা সর্তেও , স্মার্টফোনটি তেমন কোন ভারি মনে হয়নি আমার কাছে ।
এবার একটু সিস্টেমের বাইরে যেয়ে , রাইট প্যানেলে হাইব্রিড সিম এবং এস ডি কার্ড স্লট রাখা হয়েছে । দুটি ন্যানো সিমের পাশাপাশি একটি এসডি কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন । আর লেফট প্যানেলে থাকছে পাওয়ার বাটন এবং ভলিওম রকার। টপ প্যানেলে থাকছে ইউ এসবি পোর্ট , অডিও য্যাক পোর্ট ও সেকেন্ডারি মাইক্রোফোন । আর বোটম প্যানেলে থাকছে স্পিকার গ্রিল। স্পিকার গ্রিলটি অলেল ডিজাইন ডেফিনেটলি এর বিল্ড কোয়ালিটি নতুন মাত্রা যোগ করেছে ।
আন্ড্রোয়েট ৭ .০ নোগাট বেজ ওপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে এই স্মার্টফোণটিতে ।

walton hm4
ইউ আই টি একে বারে স্টক , শুধু মাত্র কিছু আইকন গুলোতে কাস্টমাইজড করা হয়েছে । ওভারঅল ইউ আই টি আমার কাছে বেশ লাইটি মনে হয়েছে । অ্যাপ রেসপন্ডিং টাইম যথেষ্ট
স্লো ছিল । ডিভাইসটি এমারচার ইউজার দের জন্য ঠিক-ঠাক হলেও বাফ এন্ড টাফ ইউজারদের জন্য একেবারেই এই স্মার্টফোনটি নয় । আর তা ছাড়া এর ইউ আই টি নিয়ে তেমন কিছু বলার নেই, আমার মনে ইউ আই ল্যাগিং এক্সপ্রিয়েন্স । ইউজাররা কিছুটা হলেও মানিয়ে নিবে এর ৫.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লের জন্য , ৯৯৯০ টাকার এমন স্মার্টফোণ পাওয়া কিছুটা অবাক করার মতোইছিল ।
ডিসপ্লে হিসেবে এই স্মার্টফোনটিতে আই পি এস ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে ।

hm4

 

১২৮০ x ৭ ২০ পিক্সেল ডিসপ্লে ডিভাইসের পিপি আই ২৬৭ , মোটামুটি একুরেট কালার রিপ্রেজেণ্ট করে । নো ডাউট মাল্টি মিডিয়া এক্সপ্রিয়েন্স দারুন ভাবে এনজয় করতে পারবেন ।
স্মার্টফোনটিকে ব্যকাপ দিচ্ছে ১.৩ গিগাহার্জকোয়াড কোর প্রসেসর, আর জিপিও হিসেবে থাকছে মালি ৪০০ । টোটাল র‍্যাম ১ জিবি আর রোম হিসেবে টোটাল ১৬ জিবি স্টোরেজ পাবেন একটা প্লাস পয়েন্ট হলো এসডি কার্ড ব্যবহার করে ৬৪ জিবি পর্যন্ত মেমোরি এক্সপেন্ড করে নিতে পারবেন ।
লো ইন্ড চিপসেট কম রাখার কারনে স্মার্টফোনটি দিয়েও এইচ ডি গেম গুলো মোটেও ভালো ভাবে খেলতে পারবেন না , বাট নরমাল এন্ড্রয়েন্ড গেমগুলো বেশ ভালোভা বে প্লে করতে পারবেন ।

hm4
এই বাজেটে স্মার্টফোণে ওয়াল্টনের ফিংগার প্রিন্ট সেন্সর সবাইকে বেশ অবাকি করেছে । বাট ফিংগার প্রিন্ট সেন্সরটি আমার কাছে কিছুটা স্লো মনে হয়েছে । আই মিং রেসপন্স টাইম
আসলেই স্লো ছিল  স্মার্টফোনটির ফ্রন্ট  বিএসআই ৮ মেগা পিক্সেল এবং  রেয়ারে  ১৩ মেগা পিক্সেল ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে ।

hm4
বিএসআই সেন্সর ব্যবহার করায় লো লাইটে কিছুটা বেনিফিট পাবেন । ক্যামেরা ইউ আইটি একে বারেই কাস্টমাইজড , ফোকাসিং স্পিড কিছুটা স্লো হলেও , ক্যামেরা সাটার স্পীড আমার কাছে বেশ স্লো মনে হয়েছে । ক্যামেরা পিকচার কোয়ালিটি বাজেট অনুযায়ী মোটামুটি ভালোই ছিল বাটস্লো সাটার স্পীডের কারনে মাঝে মাঝে সেক পিকচার ক্যাপচার করে ফেলে ।

hm4
কিছু প্রিফেক্স মোড রয়েছে প্রফেশনাল ক্যামেরা মোডে সামান্য কিছু সয়াপ করে ভালো ছবি তুলতে পারবেন । তাছারা ক্যামেরা সেটিংস অনেকটা কাস্টমাইজড এবং অরগেনাইজড ।
ফ্রন্ট ক্যামেরাটি ভালোই ফেস ডিটেকশন করতে সক্ষম, সেলফি কোয়ালিটি নিয়ে আমার কোনো

hm4
কমপ্লেইন নেই । আর ফেস বিউটি মোড ত থাকছেই । স্মার্টফোনটির ক্যামেরাটি দিয়ে তোলা প্রতিটি ছবি ছিল সার্পনেস আর ডিটেইলস কনসিডার করবে । ক্যামেরাটি দিয়ে তোলা আমাদের ছবি গুলো দেখে নিতে পারেন ।


এবার আসছি এইচ এম সিরিজ স্মার্টফোন গুলোর মেইট ফিচার , আই গেস এই সিরিজের আগের স্মার্টফোন গুলো যারা ফলো করতেন , যানেন স্মার্টফোণ গুলি পাওয়ার ব্যাংক হিসেবে ব্যবহার করা যায় । ওয়াল্টন এই স্মার্টফোনটির ক্ষেত্রেও সেম ধারাটিই অব্যাহত , স্মার্টফোনটি পাওয়ার  ব্যাংক  হিসেবে ব্যাবহার করতে পারবেন ।

hm4

তা ছাড়া স্মার্টফোণটি ওটিজি সার্পোটেড সুতরাং ইউ এস বি সকল পেরিফেরাল গুলি ব্যবহার করতে পারবেন আর ওটি এ ফিচার ত থাকছেই ।


৩৮০০ মিলি এম্পায় বিগ ব্যাটারি মুটামুটি ৬ ঘন্টা স্ক্রীন টাইম আর নিরদিধায় থেকে এক থেকে দের দিন ব্যবহার করতে পারবেন ।

৯৯৯০ টাকাই স্মার্টফোন আমার কাছে ভালো লেগেছে। অবশ্যই টার্গেট কাস্তমারদের কথা মাথাই রেখেই স্মার্টফোন বাজারে আনা হয়েছে। যার এই বাজেটে স্মার্টফোন কেনার কথা চিন্তা করছেন তাদের জন্য ভালো একটি চয়েজ হতে পারে।
আশা করি, আমাদের রিভিউটি আমাদের ভালো লেগেছে।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

« »