Walton Primo S6 Infinity Hands on Review in Bangla

Mar 31 • রিভিউ, স্মার্টফোন • 116 Views • No Comments on Walton Primo S6 Infinity Hands on Review in Bangla

ওয়ালটনের ZX অথবা X সিরিজের আন্ডারে ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন রিলিজ করলেও পূর্বেও S সিরিজের আন্ডারে প্রিমিয়াম কিছু স্মার্টফোন পেয়েছে ওয়ালটন ইউজাররা। আমার দেখা S সিরিজের আন্ডারে S2 আর S2 Mini এযাবৎ কালে এই সিরিজের প্রিমিয়াম ও কোয়ালিটিফুল স্মার্টফোন ছিল। যদিও সেটা অনেক আগের কথা। S সিরিজের সেই প্রভাব ফিরেয়ে আনতেই এবার S সিরিজের আন্ডারে Walton রিলিজ করল Walton Primo S6 Infinity।

ডিসপ্লে ৫.৫ ইঞ্চি ফুল ভিউ আইপি এস   ডিসপ্লে (১৪৪০*৭২০)
অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড ৮.০ ওরিও
প্রসেসর  ৬৪ বিট – ১.৩ গিগাহার্জ কোয়াড কোর প্রসেসর
র‌্যাম ৩  জিবি
ইন্টারনাল স্টোরেজ/ রোম ৩২ জিবি
জিপিউ ৪০০
মেমোরী কার্ড স্লট সর্বোচ্চ ১২৮ জিবি পর্যন্ত
 রেয়ার  ক্যামেরা ১৩  মেগাপিক্সেল
ফ্রন্ট  ক্যামেরা ৮ মেগাপিক্সেল
সিম সাপোর্ট ১ মাইক্রো সিম+ ১ ন্যানো সিম
ব্যাটারী ৩০০০মিলি অ্যাম্পিয়ার ব্যাটারী
মূল্য ১৬৯৯০ টাকা

প্রথম দেখতেই এই লুক আপনাকে প্রেমে ফেলতে বাধ্য, যাকে বলে Love at first sight. লুকের প্রেমে তো আপনার মত আমিও পরে গেছি যেদিন থেকে ইহা ব্যবহার শুরু করেছি। কিন্তু লুক দিয়ে কি সব হয়ে যাই, মামা? এই সুন্দরি রূপবতীকে বাগে আনতে আপনাকে ১৬,৯৯০ টাকা খরচ করতে হবে। রূপের সাথে সাথে গুন গুলো না দেখে এখন কি আর কোন উপায় আছে? তো চলুন, শুরু করা যাক।
Walton Primo S6 Infinity ভালো কিছু ইনোভেটিভ ফিচার্স নিয়ে বাজারে এসেছে। সব থেকে বড় কথা হলো এটি ওয়ালটন প্রথম ফোন যেখানে ফেস আনলক এতো স্মুথলি আর পারফেক্টলি কাজ করতে দেখলাম। ইভেন লো লাইটে এর ফেস আনলকইং পাওয়ার দেখে আমি পুরাই মুগ্ধ। সেটিংসের সিকিউরিটির মধ্যে স্মার্টলক অপশনটি পেয়ে যাবেন। ট্রাসটেড ফেসে গিয়ে নিজের পাটানটি দিয়ে ফেলুন। বাস হয়েছে গেছে, এখন আপনার সুন্দরি প্রিয়তম আপনাদের দেখা মাত্রই চিনে ফেলবে। যদিও এটা গুগলের বিল্ট ইন ফিচার তারপরও ওয়ালটনের অন্যান্য সকল ডিভাইস থেকে এই ডিভাইসটি আমি অনেক বেশি এগিয়ে রাখব।

Walton Primo S6 Infinity খুব ই লাইট ওয়েট। ভিতরে ৩০০০ মিলি আম্পিয়ারের ব্যাটারি থাকা সর্তেও স্মার্টফোনটি অনেক হালকা। গ্লাস আর মেটালের দারুণ কম্বাইন লুক আপনাকে অবাক করবে। ব্যাকপার্টিতে গ্লাস ব্যবহার করা হয়েছে। গ্লাস থাকার প্রধান প্রব্লেম হল এটা অনেক বেশি ফিংগারপ্রিন্ট ম্যাগনেট। একটু স্লিপারি। হাত থেকে একবার পরলেই… বাস… খেলা খতম। তো রূপবতী এই স্মার্টফোনটির সাথে ব্যাকপার্টটি ব্যবহার করার পরামর্শ থাকলো।

তবে আগে থেকেই বলে রাখা ভালো যেহেতু ব্যাকপার্টে গ্লাস ব্যাবহার করা হয়েছে সেহেতু স্বাভাবিক নিয়মেই কিছুটা হিটাপ হবে। আর হ্যাঁ আরেকটি কথা বলতে ভুলেই গিয়েছিলাম এর ব্যাকপার্টটি সম্পূর্ন সিল্ড করা। স্ট্যান্ডার্ড সাইজ হওয়াতে One hand operation গুলোতে কোনো প্রকার প্রবলেম হবে না ।

 

Primo S6 Infinity এর সাইডগুলোতে কার্টিং এডজ ফিনিশিং দেয়া হয়েছে যা এর বিল্ড কোয়ালিটিকে আরো একধাপ উপরে নিয়ে এসেছে। অনেষ্টলি অনেকদিন পর ওয়ালটনের কোনো ডিভাইস আমার হ্রদয় কেড়েছে। তাই এতো বলছি।


যাইহোক এর ফ্রন্ট প্যানেলটিও কোন অংশে কম না। ফ্রন্টে থাকছে 8 মেগা পিক্সেলের ক্যামেরা,ইয়ারপিস ও ফ্লাশলাইট। ও হ্যাঁ একটা নোটিফিকেশান লাইট ও আছে।

Walton Primo S6 Infinity এ 2.5D Curved Glass থাকছে। ওয়ালটন বলছে তাদের ফ্রন্ট প্যানেলটিকে স্ক্রাস থেকে রক্ষার জন্য হাইলি প্রটেকটেড স্ক্রাস রেজিসতেঞ্ছ গ্লাস ব্যবহার করেছে। ডিসপ্লে হিসাবে 5.5 inches, In-Cell HD ডিসপ্লে ব্যাবহার করা হয়েছে। বিগ বাজেটে প্রথমবারের মত 18:9 aspect Ratio ডিসপ্লে নিয়ে হাজির এবার ওয়ালটন। সাইডে বাজেল বা চিন যেটাই বলেন অনেক বেশি। দাম অনুসারে বাজেললেস হলে ভালো হত।

কিন্তু কি আর করার, ডিসপ্লেটির রেজুলেশন 1440 x 720 pixels যা এপ্রোক্স 26 Million Color সাপোর্টেড। আপ টু 5 Fingers Multi touch Support দিবে।

 

ডিসপ্লেটি একুরেট কালার শো করে, ফুল এইচডি ভিডিও প্লে ব্যাক এক্সপিরিয়েন্স ভালোই ছিলো, ভিউ এংগেলের দিকেও কোনো প্রকার সমস্যা চোখে পড়েনি। মাল্টিমিডিয়া গুলো এঞ্জয় করবেন আশাকরি।

এতে আমিগোর ইউ আই ব্যাবহার করা হয়েছে। অনেক বেশি ভারী ইউআই কিন্তু যথেষ্ট ইউজার ফ্রেন্ডলি। এপ্স ট্রানজেশন সুপার ফাস্ট, আইকন গুলো কাষ্টমাইজড, কোনো এপ ড্রয়ার থাকছে না তাই যারা স্টকের ফীল নিতে চান তারা থার্ড পার্টি কোনো লঞ্চার ব্যাবহার করতে পারেন। সুইচ বিটুইন এপস ও ফাস্ট ছিলো। টাচ রেসপন্সে কনো কমতি ছিলো না।

স্মার্টফোনটি Android Oreo তে রান করছে। আমিগোর বেশ কিছু বিল্ট ইন ফিচার রয়েছে। আর কত বলব এগুলো নিয়ে। বলতে বলতে মুখ বাথা করে ফেলেছি। অনেক গুলো স্মার্ট গেসছার অপশন রয়েছে স্মার্টফোনটিতে। এগুলো ট্রায় কেরে দেখতে পারেন। থাকছে সেপেন্ড বাটন। আর ওটিএ আপডেট অপশন তোঁ থাকছেই। সময় মত ব্যাঘ ফিক্স আপডেট গুলো পেয়ে যাবেন।

থাকছে পিকচার ইন পিকচার মুডস। পিকচার ইন পিকচার মুডে ইউটিউবের মজা নিতে পারবেন না কারন এই অপশনটি শুধু মাত্র ইউটিউব রেড ইউজারদের জন্য। কিন্তু ভাই খারান, এই সমস্যার সমাধান ও আছে, কিন্তু এটি ব্যবহার করতে আপনাকে বেশ লম্বা পথ অতিক্রম করতে হবে। ইউটিউব অ্যাপ দিয়ে না পারলেও ব্রাউজার ইউস করে সুবিধাটি উপভোগ করুন।


স্মার্টফোনটির ব্যাক সাইডের টপে 13 Mp এর রেয়ার ক্যামেরা ও ফ্ল্যাশ লাইট থাকছে তার কিছুটা নিচে ফিংগারপ্রিন্ট সেনসর ও একেবারে নিচের দিকে লাউড স্পিকার পাবেন। রাইট সাইডে পাওয়ার বাটন ও ভলিউওম রকার্স থাকছে।আর লেফট সাইডে সিম স্লট পাবেন।

 

টপ সাইডে ফুল ব্ল্যাংক রাখা হয়েছে আর নিচের দিকে মাউথ পিস, অডিও জ্যাকপোর্ট আর ইউ এস বি পোর্ট রাখা হয়েছে । ফ্রন্ট সাইডের টপে পাশা পাশি বি এস এই সেন্সর যুক্ত ফ্রন্ট ক্যামেরা সফট এল ই ডি ফ্ল্যাশ লাইট ও ইয়ার পিস থাকছে।

রেয়ার ক্যামেরায় বি এস আই সেন্সর সহ 13Mp PDAF মানে Phase Detection auto Focus সহ এলইডি ফ্ল্যাশ থাকছে, রেয়ার ক্যামেরাটির এপার্চারর f2.0. বিল্ট ইনে ভালো কিছু ফিচার্স থাকছে যেমন স্লো মোশন, কার্ড স্ক্যানার, মুড ফটো, নাইটমুড, জি আই এফ ট্রান্সলেশন ইত্যাদি।o

কিন্তু কেন প্রোফেসনাল ক্যামেরা মুডসটি রাখা হল না সেটা আমার বোধগম্য নয়। রেয়ার ক্যামেরার সাটার স্পিড ফাস্ট ছিলো। ছবি গুলোর কালার, সার্পনেস, ডিটেলস ভালোই, তেমন কোন কম্পেইন নেই আমার। দিনের আলোকে ঝকঝকা ফকফকা ছবি আউটপুট দিবে। তবে লো লাইট পিকার গুলো ভালোই লেগেছে আমার কাছে।

রেয়ার ক্যামেরাটি দিয়ে অনায়াশে ফুল এইচডি ভিডিও মানে 1080*1920 তে ভিডিও রেকর্ড করতে পারবেন।

ফ্রন্টের ৮ মেগা পিক্সেল ক্যামেরাটিও ভালো মানের সেলফি আউটপুট দিবে আপনাকে। ফ্রন্ট ক্যামেরাটির এপার্চারর f2.2। রেয়ার ক্যামেরার মতো ফ্রন্ট ক্যামেরাতেও বেশ কিছু সেটিন্স ও মুড পাবেন। ক্যামেরা দিয়ে তোলা আমাদের পিকচার স্যাম্পল গুলো দেখে নিন।

স্প্লিট স্ক্রিনের অপশন ও পেয়ে যাবেন,একসাথে মাল্টি টাস্কিং কাজ গুলো চালিয়ে নিতে পারবেন ইজিলি।

স্মার্টফোনটি ওটিজি ইনেবল। সব ইউএসবি পেরিফেরাল গুলোই এতে ব্যবহার করতে পারবেন। সেটিংসে রিভার্স চার্জ অ্যান্ড ওটিজি অপশনটি ইনাবেল করে নিতে হবে।

4জি নেটওয়ার্ক নিয়ে আর কিছু বলতে চাই না, অনেক হতাশ আমি। কি ভাবছিলাম আর কি হল। যাইহোক 4জি নেটওয়ার্ক আপনাকে হতাশ করলেও ওয়ালটন আপনাকে হতাশ করেনি। স্মার্টফোনটি 4জি নেটওয়ার্ক সাপোর্টেড।

এবার চলে আসি আসল কথায়। মিডিয়াটেক Quad-core, 1.3 GHz (64-bit) এর প্রসেসর পাবেন Walton Primo S6 Infinity তে যার জিপিও মালি T-720। এই বাজেটের স্মার্টফোনে কেন এই প্রসেসর ব্যবহার করল সেটা আমার বুঝার বাইরে। এতক্ষণ সব ভালোই ছিল। কিন্তু এখানে এসে আটকে গেলাম। ডেফিনিটলি আরও ভালো প্রসেসর অফার করতে পারত। বাজেটের দিক বিবেচনায় এর প্রসেসরে অনেকটা পিছিয়ে পরেছে স্মার্টফোনটি।

যাইহোক, 3 GB LPDDR3 এর র‍্যাম পাবেন আর রোম হিসেবে 32 Gb থাকছে আর এক্সপেন্ডেবল মেমোরি হিসেবে সর্বোচ্চ 256 GB পর্যন্ত ব্যাবহারের সুযোগ থাকছে ।

Walton Primo S6 Infinity গেমার্দের জন্য ভালো অপশন হতে পারে, এর গেইমিং এক্সপিরিয়েন্সে আমার কাছে খারাপ লাগেনি। মিড গ্রাফিস্ক, হাই গ্রাফিক্সের বেশ কিছু গেইম খেলেছি এতে আমি কোথাও তেমন একটা ল্যাগের সন্ধান পাই নি। গেইমিং এ খুব ভালো এনজয় করেছি, আশা করি আপনারা ও ভালো এনজয় করবেন।

ফিঙ্গার প্রিন্ট সেনরস এখন প্রায় সব ডিভাইগুলোতেই থাকছে, কিন্তু কথা হলো শুধু থাকলেই তো হবে না এর রেসপন্স কেমন সেটাও দেখার বিষয়। Primo S6 ইনফিনিটির ফিঙ্গার প্রিন্ট সেনসরটি বেশ কার্যকরী। ফিঙ্গগারপ্রিন্টে ফিঙ্গার প্লেস করার সাথে সাথেই রেসপনস করেছে। ফিংগারপ্রিন্ট সেনসরটি যেমন ফাস্ট ও একুরেট কাজ করে তেমনি এর ফেইস আনলক্টি ও সেই লেভেলের কাজ করে।

Accelerometer (3D), Gravity, proximity, Magnetic Field, Orientation Finger Print , hall সহ বেশ কিছু কার্যকরী সেন্সর পাবেন Walton Primo S6 Infinity ডিভাইস্টিতে ।


৩০০০ মিলি এম্পিয়ারের ব্যাটারি ও যে খুব একটা খারাপ ব্যাকাপ দিবে আপনাকে বিষয় টা কিন্তু তেমন নয়, এপ্রোক্স টানা ১ দিন হেভি ইউজে ব্যাবহার করতে পারবেন এটি।

Blue, Golden and Grey এই ৩ টি কালারেই দেখা মিলবে Walton Primo S6 Infinity ডিভাইসটি । বাজেট অনুযায়ী সব কিছুই মানিয়ে নেয়া মতো ছিলো শুধু প্রসেসর ছাড়া। সত্যি বলতে দিন শেষে ডিসিশন নেওয়ার দায়িত্ব আপনারই। বাজেরে এই বাজেটে অনেক স্মার্টফোনই রয়েছে। সবকিছু বিবেচনা করে আর আফটার সেল সেবার কথা মাথায় নিয়ে স্মার্টফোন কিনবেন আশা করি/

যাইহোক সম্পূর্ন রিভিউটিতে আমাদের সাথে থাকার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ। আগামীতে আরো নতুন নতুন সব স্মার্টফোনের রিভিউ নিয়ে হাজির হবো খুব শীঘ্রই সেই পর্যন্ত আপনারা সবাই ভালো থাকবেন আশা করি। আজ এই পর্যন্তই। ধন্যবাদ

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

« »