সরষের মধ্যেই ভূত!

Mar 15 • নিউজ • 425 Views • No Comments on সরষের মধ্যেই ভূত!

সরষের মধ্যেই ভূত! কথাতি শুনে অনেকেই হয়তো অবাক হয়েছেন। আবার অনেকের মনেই প্রশ্ন  জেগেছে এই কথা এখানে বলার মানে কি???

ইসরায়েলভিত্তিক সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান চেক পয়েন্টের গবেষকেরা বলছেন, সরষের মধ্যেই থাকে ভূত। কথাটি দিয়ে  তারা বুঝাতে চেয়েছেন মোবাইল ফোনে ভাইরাস ইনস্টল হওয়ার জন্য ব্যবহারকারীরাই দায়ী।

সম্প্রতি তাঁরা এমন একটি ম্যালওয়্যার বা ক্ষতিকর সফটওয়্যার শনাক্ত করেছেন, যা ব্যবহারকারী ডাউনলোড করেন না বরং এটি অ্যান্ড্রয়েড সফটওয়্যারচালিত যন্ত্রে আগে থেকে উপস্থিত থাকে।

গত সপ্তাহে চেক পয়েন্টের এক ব্লগ পোস্টে দাবি করা হয়, প্রি-ইনস্টল বা আগেভাগে ইনস্টল থাকা ম্যালওয়্যার প্রায় ৩৮টি মডেলের অ্যান্ড্রয়েড যন্ত্রে খুঁজে পাওয়া গেছে। ওই ম্যালওয়্যার বড় বড় টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি ও বহুজাতিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের তৈরি।

চেক পয়েন্টের দাবি, ক্ষতিকর ম্যালওয়্যার বা সফটওয়্যারগুলো যন্ত্র নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের সরবরাহ করা অফিশিয়াল রমের অংশ নয়। এগুলো সাপ্লাই চেইন বা সরবরাহ করার কোনো একপর্যায়ে ওই যন্ত্রে বসানো হয়। এই ম্যালওয়্যার আবার ব্যবহারকারীদের মুছে দেওয়ার কোনো সুযোগ থাকে না। এটা মুছতে যন্ত্রটি পুরোপুরি রি-ফ্ল্যাশড করতে হয়।

প্রি-ইনস্টল থাকা অন্যতম একটি ম্যালওয়্যার হচ্ছে স্লকার। এটি মূলত প্রতারণাকারী প্রোগ্রাম বা মোবাইল র‍্যানসমওয়্যার। এটি মোবাইল ফোনে থাকা সব ফাইল অ্যাডভান্সড এনক্রিপশন স্ট্যান্ডার্ড (এইএস) নামের এনক্রিপশন এলগারিদম ব্যবহার করে আটকে ফেলে। এর ফলে কোনো ফাইলে আর ঢুকতে পারেন না ব্যবহারকারী। তখন এটি কাজে লাগিয়ে ফাইল খুলে দেওয়ার শর্তে অর্থ দাবি করতে পারে ওই র‍্যানসমওয়্যারের নির্মাতা।

চেক পয়েন্টের বিশ্লেষকেরা বলেন, প্রি-ইনস্টল করা আরেকটি জটিল ম্যালওয়্যার হচ্ছে লকি। যন্ত্রের যেকোনো ধরনের ক্ষতি করা বা তথ্য চুরির কাজে ব্যবহার করা যায় এর বিভিন্ন ফাংশন।

গবেষকেরা বলেন, আগে থেকে ইনস্টল থাকা বিভিন্ন ক্ষতিকর প্রোগ্রাম যন্ত্র থেকে তথ্য চুরি করে এমনকি যন্ত্রের পুরো নিয়ন্ত্রণ নিতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা অ্যান্ড্রয়েডচালিত ডিভাইস সুরক্ষায় হালনাগাদ উন্নত নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছেন। তথ্যসূত্র: আইএএনএস।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

« »